শীতে কাঁপছে দিনাজপুর

0
332

জেলা প্রতিনিধিঃ হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত উত্তরের জেলা দিনাজপুর। শীতের প্রকোপে নাকাল হয়ে পড়েছে এখানকার জনজীবন। মৃদু শৈত্যপ্রবাহ আর হিমেল হাওয়ায় তাপমাত্রা নেমে এসেছে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। বাতাসের আর্দ্রতা ৯৭ শতাংশ। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, দু’একদিনের মধ্যে দিনাজপুরের উপর দিয়ে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে তাপমাত্রা নেমে আসবে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। হঠাৎ জেঁকে বসা শীতে চরম বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। ঘন কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষজন নাকাল হয়ে পড়েছে।

কুয়াশার চাদর ভেদ করে সূর্য উদিত হলেও কমছে না শীতের প্রকোপ।
শীতবস্ত্রের অভাবে শীতের প্রকোপ থেকে মুক্তি পেতে অনেকে খড়কুটো জ্বালিয়ে
শীত নিবারণের চেষ্টা চালাচ্ছে। দু’দিন থেকে ঘন কুয়াশা আর কনকনে শীতে কাঁপছে
উত্তরের জনপদ। শীতে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েছে শিশু ও বয়স্ক মানুষ।
ঠাণ্ডাজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে তারা। হাসপাতালে বেড়ে চলেছে শিশু ও
বয়স্ক রোগীর সংখ্যা। হঠাৎ শীতে শ্রমজীবী মানষের বেড়েছে চরম দুর্দশা।
ঠাণ্ডার কারণে ঘরের বাইরে বের হতে পারছেন না তারা। হতদরিদ্র-ছিন্নমূল মানুষ
শীতবস্ত্রের অভাবে অনেকেই খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা চালাচ্ছেন।
ঘন কুয়াশার কারণে দিনের বেলাও রাস্তায় যানবাহন চালাচ্ছে হেডলাইট
জ্বালিয়ে।  দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন
জানিয়েছেন, দু’একদিনের মধ্যে দিনাজপুরের উপর দিয়ে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে
যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এতে তাপমাত্রা নেমে আসবে ৬ ডিগ্রি
সেলসিয়াসে। এদিকে সরকারিভাবে জেলা, উপজেলা প্রশাসন, বিজিবি, ট্রাই
ফাউন্ডেশন, চ্যানেল আই দর্শক ফোরামসহ বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক,
বীমা ও সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে কিছু কিছু এলাকায় গরম কাপড় বিতরণ করলেও
প্রয়োজনের তুলনায় তা অপ্রতুল। জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্রে জানা
গেছে, শীতবস্ত্রের চাহিদা অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পত্র প্রেরণ করা
হয়েছে। এসব শীতবস্ত্র এলেই তা বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ।
এভাবে ঘন কুয়াশা ও শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে মানুষের অবস্থা শোচনীয় হয়ে
পড়ার আশঙ্কা করছেন আবহাওয়াবিদরা। শীতের প্রকোপ থেকে রেহাই পেতে
হতদরিদ্র-ছিন্নমূল মানুষ এই মুহূর্তে প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্রের দাবি তুলছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here