রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

0
151
রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

বিভিন্ন এলাকায় নদী ভাঙন দেখা দেওয়ায় লোকজন তাদের ঘরবাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। রবিবার তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে নদীর পানি বিপদসীমার (৫২ দশমিক ৬০ মিটার) ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

তিস্তার  আকষ্মিক বন্যায় রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা উপজেলার নদী কূলবর্তী ৫০ গ্রাম তলিয়ে যাওয়ায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ২০ হাজার পরিবার। এর মধ্যে গঙ্গাচড়ায় ১০ হাজার পরিবার, কাউনিয়ায় ছয় হাজার পরিবার ও পীরগাছায় চার হাজার পরিবার। ঘরবাড়ি তলিয়ে যাওয়ায় অনেকে তিস্তার বাঁধে গবাদি পশুসহ আশ্রয় নিয়েছে। অনেকের ঘরে হাটু কিংবা কোমর পানি ওঠায় চুলা জ্বালাতে পারছে না । বন্যাকবলিত এলাকায় খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে।কোলকোন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহরাব আলী রাজু জানান, শুধু তার ইউনিয়নেই প্রায় দুই হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। জরুরি ভিত্তিতে বন্যদুর্গত এলাকায় ত্রাণসামগ্রী প্রয়োজন বলে জানান তিনি।

লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ্ আল হাদী জানান, বন্যার সঙ্গে নদী ভাঙনে সর্বশান্ত হচ্ছে চরের মানুষজন। বর্তমানে এলাকায় খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। তবে ক’দিন আগে গঙ্গাচড়ার লক্ষ্মীটারী, কোলকোন্দ ও নোহালী ইউনিয়নে কভিড-১৯ সহ অসহায় মানুষদের জন্য ২৩ মেট্রিক টন করে চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাছলিমা বেগম জানান, গত দু’দিনে লক্ষ্মীটারী ও কোলকোন্দ ইউনিয়নের ৭০০ পরিবারের মাঝে পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, স্যালাইন, মোমবাতিসহ শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here