যুবলীগ নেতার পিয়ন হাজার কোটি টাকার মালিক

0
278

যুবলীগ নেতার পিয়ন থেকে,আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের বড় নেতা এবং হাজার কোটি টাকার মালিক। বলছিলাম আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের মহানগর উত্তর এর সাংগাঠনিক সম্পাদক কে এম মনোয়ারুল ইসলাম বিপুলের কথা।এক সময় যুবলীগ নেতা এসএম জাহিদের চা নাস্তা পরিবেশন পিয়নের চাকরি করতেন ঢাকা শেওরা পাড়া কাজি পাড়ার কেএম মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল।আজ সে তার দূর্নীতির তীক্ষ্ম দূরদর্শিতায় বাগিয়ে নিয়েছে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ মহানগর উত্তর এর সাংগাঠনিক পদ এবং হাজার কোটি টাকার সম্পদ।ম্যাচে থাকার সময় অসহায় বেকার ছাত্রদের টাকা আত্মসাত করা এই বিপুল পদ পোস্ট পেয়ে ই কিভাবে রাতারাতি গাড়ি বাড়ি র মালিক হওয়া যায় সে যেনো উদাহরন।দূদকের তল্লাশীতে ই বেরিয়ে আসতে পারে তার দূর্নীতির চিত্র।ঢাকা শেওরা পাড়া যেনো জমি দখল,টেন্ডার বাজি চাঁদাবাজি তার নিয়মিত অফিস রুটিন।গড়ে তুলেছেন কয়েক সদস্যের গ্যাং স্টার। যাদের কাজ ই হলো চাঁদাবাজি করা।এক রাস্তার ছেলে আজ কিভাবে ১১ বছরের ক্ষমতায় এত বড় এবং বিলাসবহুল গাড়ি বাড়ির মালিক হতে পারে,বিলাস বহুল পাজেরো গাড়ি,ব্যাংকে টাকার পাহাড়?জানা যায় ঢাকার অন্ধকার জগতের শাহেন শাহ কীলার আব্বাস,শীর্ষ সন্ত্রাসী শাহদাতের ঘনিস্ট সহযোগী হিসেবে কাজ করেন বিপুল।বর্তমান আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাঃ সম্পাদক পঙ্কজ নাথ এর ঘনিস্ট সহচরের পরিচয় এবং প্রশাসন কে ম্যানেজ করেই চলছে তার এই দূর্নীতির কর্মকান্ড।স্থানীয় সূত্রে জানা যায় মনোয়ারুল ইসলাম বিপুল তার পদ পোস্ট দেখিয়ে এমন কোন অপকর্ম নেই সে করছে না।সব ই প্রশাসন কে মেনেজ করে।এখন ই যদি সরকার বা দূর্নীতি দমন কমিশন তার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে কোন ব্যবস্থায় না যায় এক সময় বিপুল এর দখলদারীতে হারাতে হবে অসংখ্য জমি,রাস্তায় বসতে হবে অসংখ্য পরিবার কে।তার সন্ত্রাসী বাহিনির ভয়ে কেউ মুখ না খুল্লেও দূদকের উচিৎ তার বিরুদ্ধে তদন্ত করা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here