মোংলা বন্দর থেকে দেশের অভ্যন্তরীণ সকল রুটে পরিবহন ধর্মঘট চলছে দূর-পাল্লার বাস চলাচল বন্ধ

0
356

মোঃ সোহেল(মংলা) প্রতিনিধিঃ সড়ক পরিবহনের ঘোষিত আইন বাতিলের দাবিতে মোংলা বন্দর থেকে দেশের অভ্যন্তরীণ সকল রুটে পরিবহন ধর্মঘট চলছে। সোমবার (১৮ নভেম্বর) ধর্মঘটের কারণে আজ ও (১৯ নভেম্বর) মঙ্গলবার সকাল থেকে দূর পাল্লার যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগের মুখে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা।
পরিবহন শ্রমিক নেতারা বলছেন, রাস্তায় দুর্ঘটনার মামলা জামিন-যোগ্যসহ সড়ক আইনের কয়েকটি ধারা সংশোধন চান চালকরা। তাদের দাবি, আইন সংশোধনের পরই এটি দ্রুত কার্যকর করা হোক। তা না হলে আমাদের এ কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে।
তারা আরো জানান, সরকারের বিভিন্ন দফতরে বারবার অনুরোধ সত্ত্বেও আইনটি সংশোধন ছাড়াই বাস্তবায়নের ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে শ্রমিকদের মধ্যে মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে শুধু মোংলা নয় দক্ষিণাঞ্চল থেকে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে শ্রমিক ফেডারেশন সভা ডাকা হবে, ওই সভার সকল এজেন্ডাগুলোর মধ্যে প্রথম এজেন্ডা থাকবে সড়ক পরিবহন আইন সম্পর্কে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ।


এদিকে হঠাৎ করে মোংলা থেকে সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়ায় হাজার হাজার যাত্রী দুর্ভোগে পড়েন। সকালে যশোরে যাওয়ার জন্য বাস-স্ট্যান্ডে এসেছিলেন একলাছুর রহমান। তিনি জানান, যশোরে একটি জরুরি কাজের প্রয়োজনে সকালে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত নিয়েছিলাম কিন্তু মোংলা বাসস্টান্ডে এসে দেখি বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে চালক ও শ্রমিকরা।
খুলনা আন্তঃজেলা বাস-মিনিবাস, কোর্স ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বলেন, আমরা বাস চলাচল বন্ধ করেনি। তবে নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের প্রতিবাদে শ্রমিকরা বাস চালাচ্ছেন না। তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালন শুরু করেছেন।
তিনি আরও বলেন, কোনো কারণে সড়ক দুর্ঘটনায় কেউ মারা গেলে নতুন আইনে চালকদের মৃত্যুদণ্ড এবং আহত হলে ৫ লাখ টাকা জরিমানা দিতে হবে। আমাদের এত টাকা দেওয়ার সামর্থ্য নেই এবং বাস চালিয়ে আমরা জেলখানায় যেতে চাই না। বাংলাদেশে এমন কোনো চালক নেই যে, ৫ লাখ টাকা জরিমানা দিতে পারবে। কারণ একজন চালকের বেতন ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। এই বাজারে যা দিয়ে সংসার চালানো, ছেলে-মেয়ের লেখাপড়ার খরচ চালানো দায় আবার সরকারের কঠোর সড়ক আইন। এ কারণেই নতুন পরিবহন আইন সংশোধনের দাবি জানান শ্রমিকরা।
সরকারের করা এ আইন যুক্তিযুক্ত নয় দাবি করে অবিলম্বে এ আইন বাতিল করার দাবি জানান চালক, শ্রমিক ও মটর শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here