বাংলাদেশ পুলিশের দায়িত্বে থেকে ভারতে তথ্য পাচার কনস্টেবলের রিমান্ড শুনানি আজ

0
307

ডেস্ক রিপোর্টঃ ভারতে তথ্য পাচারের অভিযোগে  আটক পুলিশ সদস্য দেব প্রসাদ সাহাকে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়েছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গতকাল পুলিশ তাকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে যশোর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে। বিচারক সাইফুদ্দিন হুসাইন আজ রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করে আসামিকে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দিয়েছেন। গ্রেপ্তার দেব প্রসাদ সাহা খুলনার তেরখাদা উপজেলা শহরের সুরেন্দ্র নাথ সাহার ছেলে। গ্রেপ্তার ও রিমান্ড আবেদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম ও বেনাপোল থানার ওসি মামুন খান।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তারকৃত দেব প্রসাদ সাহা
ঢাকার উত্তরা ১ নম্বর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের কনস্টেবল। সে সুবাদে ২০১৪
সালের ২৭শে ডিসেম্বর থেকে ২০১৮ সালের ১৭ই আগস্ট পর্যন্ত বেনাপোল ইমিগ্রেশনে
কর্মরত ছিলেন। তার বিপি নম্বর ৭৫৯৮০৫১১৯৮ ও কনস্টেবল নম্বর ৭০৩।

সেখানে কর্মরত থাকা অবস্থায় ভারতের অনেকের সাথে সম্পর্ক গড়ে
তোলেন। যেকারণে তিনি যখন-তখন নোম্যান্স ল্যান্ড অতিক্রম করে ভারতে যাওয়া
আসা করতেন। ইমিগ্রেশনে দায়িত্ব পালনকালে বিশেষ বাহিনীর একজন সদস্যের সাথে
তার পরিচয় ও সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। তারা দুজন বেনাপোলে মাঝে মধ্যে এসে ভারতের
এস চক্রবর্তী ও পিন্টু নামে দুজনের কাছে বাংলাদেশের গোপনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ
তথ্য পাচার করতেন। ২০১৮ সালের শেষের দিকে দেব প্রসাদ সাহা বাংলাদেশের
গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্বলিত একটি পেনড্রাইভ নোম্যান্স ল্যান্ড পার হয়ে ভারতে
পাচার করে।

১৫ দিন পর আবারো একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্বলিত
পেনড্রাইভ ভারতের এস চক্রবর্তী ও পিন্টুর কাছে হস্তান্তর করেন দেব প্রসাদ
সাহা। গত ২৫শে অক্টোবর ঢাকার কমলাপুরের একটি হোটেল থেকে ডিজিএফআই ও র‌্যাব
সদস্যদের হাতে আটক হন বিশেষ বাহিনীর এক সদস্য। এ সময় তার কাছ থেকে
গুরুত্বপূর্ণ একটি পেনড্রাইভ উদ্ধার হয় এবং ভারতে  তথ্য পাচারের বিষয়ে
জিঙ্গাসাবাদে তিনি  বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেন। পরে বিষয়টি পুলিশ হেড
কোয়ার্টার্স তদন্ত কমিটি গঠনের মাধ্যমে অনুসন্ধানে নামে। তদন্তে তাদের
মোবাইল ফোনের কললিস্ট ও ভারতের পুলিশ সুপার আব্দুল্লাহ আরেফের সঙ্গে
কথোপকথনের ভিডিও সিডির মাধ্যমে ভারতে বাংলাদেশের তথ্য পাচারের বিষয়টি উঠে
আসে। তারই ধারাবাহিকতায় গত মঙ্গলবার শার্শা থানা পুলিশ কনেস্টবল দেব প্রসাদ
সাহাকে আটক করে। প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদে দেব প্রসাদ ভারতে তথ্য পাচারের
বিষয়টি স্বীকার করে নেন। সে কারণে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্য দেব
প্রসাদ সাহাকে আটকের পর মামলা দিয়ে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন
করেছে শার্শা থানা পুলিশ। আদালত বিষয়টি আমলে নিয়ে আজ ওই রিমান্ড শুনানির
দিন ধার্য করেছে। এদিকে আটক পুলিশ কনস্টেবল দেব প্রসাদ সাহাকে জেলহাজতে
পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here