টঙ্গীবাড়ীতে রাস্তার নির্মাণ কাজ বন্ধ জনদূর্ভোগ চরমে

0
211

 টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ টঙ্গীবাড়ী উপজেলার টঙ্গীবাড়ী-হাসাইল যাতায়াতের প্রধান সংযোগ সড়কের সংস্কার কাজ দির্ঘদিন বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। টঙ্গীবাড়ী উপজেলার ধীপুর, পাঁচগাঁও, হাসাইল, কামারখাড়া ইউনিয়নসহ লৌহজং উপজেলার কলমা ইউনিয়ন ও শরিয়তপুর জেলার কয়েকটি উপজেলার হাজার হাজার যাত্রীরা প্রতিদিন এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে। ৮ কিলোমিটার দির্ঘ রাস্তাটি প্রায় তিন বছর খানাখন্দে থাকার পর ৭-৮ মাস আগে সড়কটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। তবে খুব ধীরগতিতে সে সময় নির্মানকাজ চলায় এ নিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়।

করোনার পদূর্ভাব দেখা দিলে এ রাস্তা নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। পরে উপজেলার অন্যান্য উন্নায়ন কাজ শুরু করা হলেও এ রাস্তার নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকায় চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এ পথে যাতায়াতকারীদের। ঠিকাদার রাস্তাটির অধিকাংশ স্থান খুড়ে রাখায় স্থানে স্থানে গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় ৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যরে রাস্তটির হাসাইল হতে সাতুল্লা পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিাটার রাস্তার কাজ শুধু সম্পন্ন করা হয়েছে। সাতুল্লা হতে গনাইসার পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার সড়ক ৪ মাস ধরে খনন করে এক পাশে ইট ফেলে রাখায় শুধু অর্ধেক রাস্তা দিয়ে যানচলাচল করছে। ওই অংশটি মেরামত না করায় ঐ স্থান বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। গনাইসার হতে টঙ্গীবাড়ী পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার রাস্তার প্রায় ৪ মাস ধরে খুড়ে রাখায় অনেক স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। টঙ্গীবাড়ী মাঝি বাড়ির সামনে হতে টঙ্গীবাড়ী বাজার পর্যন্ত অনেক বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। যেখানে প্রতিনিয়ত পানি জমে থাকে। বৃস্টির সময় পানি জমে এতো পানি হয় যে ওইখান দিয়ে যাওয়ার সময় গড়ির অর্ধেকাংশ পানিতে ডুবে যাত্রীদের শরীর পানিতে ভিজে যায়। এ ব্যপারে ওই রাস্তায় যাতায়াতকারী কতিপয় যাত্রীরা জানান, এ রাস্তার উপর দিয়ে কোন গাড়ি যেতে চায়না ফলে গাড়ির জন্য দির্ঘ সময় দাড়িয়ে থাকতে হয় কয়েকগুন বেশি ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। গাড়ি হুমায়ূণ জানান, এ রাস্তা দিয়ে গাড়ি চালালে গাড়ির টায়ার স্পিংসহ অন্যান্য যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে যায়। তাই সচরাচর আমরা এই রাস্তায় গাড়ি চালাই না। টঙ্গীবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, আমরা ঠিকাদারকে কাজটি সম্পন্ন করার জন্য কয়েকবার সতর্কতামূলক চিঠি দিয়েছি কিন্তু এখনো কাজ শুরু করছে না। তবে করোনার কারণে লোকবলের সংকট থাকায় কিছুটি বিলম্ব হচ্ছে অচিরেই কাজটি শুরু করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here