আমার কাছে আশা করলে তো সবার আগেই বিক্রি হওয়ার কথা : মাশরাফি

0
306

স্পোর্টস ডেস্কঃ দল জেতেনি। তাই হয়তো সেভাবে আলোচনায় নেই। আজকের (শুক্রবার) ম্যাচের সেরা বোলিং ফিগারটি কিন্তু মাশরাফি বিন মর্তুজার।

ঢাকা প্লাটুন অধিনায়ক দারুণ বোলিং করেছেন। তার ৪ ওভারে ১৪ রানের বেশি
নিতে পারেননি চট্টগ্রাম টপ ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। এই তো সেদিন
ভারতের মাটিতে প্রায় একা যিনি স্বাগতিক বোলিংকে গুড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে
টি-টোয়েন্টি ম্যাচে জয় উপহার দিয়েছিলেন, লেন্ডল সিমন্সকে দারুণ এক কাটারে
কট বিহাইন্ড করে শুরুতে ভাইটাল ব্রেক থ্রু‘ এনে দেন ঢাকা অধিনায়ক।

তার বলে একবারের জন্য আক্রমণাত্মক শটস খেলতে পারেননি চট্টগ্রামের কেউ।
উইকেটে বল একটু গ্রিপ করছিল। তাই মাশরাফি থ্রি কোয়ার্টার লেন্থে বল ফেলে দু
দিকে কাট করানোর চেষ্টা করেছেন। বেশ কিছু ডেলিভারি ব্যাটসম্যানের ব্যাট
ফাঁকি দিয়ে উইকেটের পেছনে কিপার বিজয়ের গ্লাভসেও গেছে। তবে একটির বেশি
উইকেট পাননি নড়াইল এক্সপ্রেস।

তা না পেলেও দারুণ টাইট ও বুদ্ধিদীপ্ত বোলিং করে সর্বাধিক সমীহ আদায় করে
নিয়েছেন মাশরাফি। আজ তার বোলিং দেখে মনে হয়েছে, একটু উইকেটের সহায়তা পেলে
এখনো বলে কাট এবং সুইং করানোর সামর্থ্য আছে পুরোপুুরি। ভাল জায়গায় বল ফেলে
প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের রান গতি নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি সমীহও আদায়
করতে সক্ষম মধ্য তিরিশের মাশরাফি।

অনেকেরই মত, আজ মাশরাফি অনেক দিন পর নিজেকে খুঁজে পেয়েছেন। পুরো ছন্দে
বোলিং করেছেন। খুব জোরে না করলেও ব্যাটসম্যানকে বারবার বিভ্রান্ত করেছেন।
ফ্রি শট খেলা থেকে বিরতও রেখেছেন। একটিও আলগা ডেলিভারি ছিল না।

এমন বোলিংয়ের পর মাশরাফির প্রশংসা হতেই পারে। প্রেস কনফারেন্সেও প্রশ্ন
উঠলো, ‘আচ্ছা, আপনার কাছে দলের প্রত্যাশা কি?’ জবাবে মাশরাফি যা বলেছেন,
তাতে মনে হলো মনের ভেতরে জমে আছে একটা অব্যক্ত যন্ত্রণার মেঘ।

বলার অপেক্ষা রাখে না, এবারের বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে চতুর্থ ডাকের
অষ্টম ধাপে গিয়ে মাশরাফিকে দলে নিয়েছে ঢাকা প্লাটুন। এ প্লাস ক্যাটািগরির
বাকি তিনজন তো বটেই, অনেক জুনিয়র ও অকার্যকর ক্রিকেটারও বিক্রি হয়ে গেছে
তখন। মনে হচ্ছিল, মাশরাফি বুঝি দলই পাবে না। শেষ অবধি ঢাকা কোচ সালাউদ্দীন
তাকে টেনে নেন।

বোঝাই গেল, সে ঘটনা এখনো মনে দাগ কেটে আছে। তাই মুখে এমন খেদোক্তি,
‘আমার কাছে আশা করার কি আছে? আমার কাছে আশা করেই বা কী! আশা করলে তো সবার
আগেই প্লেয়ার্স ড্রাফটে বিক্রি হয়ে যাওয়ার কথা। আসলে এটা ঠিক কি না,
মালিকরাই বলতে পারবে।’

বরাবরের মতই তিনি নিজেকে নিয়ে ভাবছেন না। নিজের পারফরম্যান্স সম্পর্কে
কিছু বলতে বলা হলে সেই পুরনো কথাই বলে উঠলেন, ‘আমি নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে
ওত ভাবি না। অনেক দিন পর মাঠে আসছি, চেষ্টা করছি। প্রায় পাঁচ মাস পর
এসেছি। মানিয়ে নিতে চেষ্টা করছি। কোন ম্যাচে ভাল, কোন ম্যাচে খারাপ। ইন
এন্ড আউটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। টি-টোয়েন্টি তো! বলা কঠিন, এই ম্যাচেই ভাল
করব। তবে চেষ্টা করছি সেরাটা দেওয়ার। কখনো হচ্ছে, হচ্ছে না এরকম।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here