আবরার হত্যার প্রতিবাদে পূর্ব লন্ডনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

0
345

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ (ছবি আছে) ১১ অক্টোবর শুক্রবার বুয়েট শিক্ষার্থী আবরারকে অবর্ণনীয় নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যার প্রতিবাদে ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টস মুভমেন্ট ফর বাংলাদেশ এর উদ্যোগে পূর্ব লন্ডনের ঐতিহাসিক আলতাব আলী পার্কে এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে যৌথভাবে অংশ নেয় সলিডারিটি ফর হিউম্যান রাইটস ইন ইউকে ও রাইটস কনসার্ন। সমাবেশে কুইন ম্যারি, বিপিপি, মিডলসেক্স, লন্ডন, সাউথব্যাংক ও কার্ডিফ ইউনিভার্সিটিসহ ইউকের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত বাংলাদেশী ছাত্রছাত্রী এবং যুক্তরাজ্যপ্রবাসী শিক্ষক, আইনজীবী, সাংবাদিকসহ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ যোগদান করেন। ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টস মুভমেন্ট ফর বাংলাদেশ এর উপদেষ্টা বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী ব্যারিস্টার আবু সায়েম মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন। এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ বক্তৃতা করেন আরও অনেকে। বক্তাগণ বলেন, একজন মেধাবী ছাত্রকে শুধুমাত্র একটি ফেইসবুক স্ট্যাটাসের কারণে নির্মম নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করা হয়েছে। ছাত্রলীগ নামের রাজনৈতিক সংগঠনটি ভিন্নমত দমনের লক্ষ্যে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পৈশাচিক কায়দায় টর্চার সেল তৈরি করে রেখেছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সাধারণ শিক্ষার্থীগণ নীরবে অত্যাচার সহ্য করে যাচ্ছে গত দশ বছর যাবত। তারা বলেন, ছাত্রলীগ একটি সন্ত্রাসী সংগঠন। এটিকে এক্ষুণি বন্ধ করতে হবে। শুধু আবরার নয়, এর আগে প্রকাশ্য দিবালোকে ক্যামেরার সামনে বিশ্বজিৎকে শিবির আখ্যা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ কাতারে আছে জনি, নুরু, বাপ্পী, মিলনসহ শত শত রাজনৈতিক নেতাকর্মী। তারা অনতিবিলম্বে সারা দেশে বাংলাদেশে ছাত্রলীগ নামের সন্ত্রাসী সংগঠনের রাজনীতি নিষিদ্ধকরণ এবং পাশাপাশি অবৈধ সরকারের পদত্যাগের দাবি জানান। তারা বলেন, লোক দেখানো গ্রেফতার কিংবা বহিষ্কার করলে চলবে না, অতি দ্রুত বিচার সুনিশ্চিত করতে হবে। সমাবেশে বক্তাগণ আরও বলেন, বাংলাদেশের জনগণের কথা তোয়াক্কা না করেই ভারতে পানি দেয়া হয়েছে। শুধু পানি নয়, বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বই অবৈধ সরকার ভারতের হাতে তুলে দিয়েছে। রাডার বসানোর নামে বঙ্গপোসাগর থেকে সম্পদ আহরণের পাঁয়তারা করছে ভারত। বক্তারা সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান। সমাবেশে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ড. আবুল হাসনাত ও মামনুন মহিউদ্দিন। সলিডারিটি ফর হিউম্যান রাইটস ইন ইউকে’র পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন প্রফেসর আবদুল কাদির সালেহ, কে এম আবু তাহের চৌধুরী, মো: সিরাজুল ইসলাম এবং রাইটস কনসার্ন পক্ষে শরিফ মোহাম্মদ খান প্রমুখ। এছাড়া বক্তব্য রাখেন আইনজীবী মুজাহিদুল ইসলাম, কমিউনিটি নেতা আবেদ রাজা, ফখরুল ইসলাম বাদল, যুবনেতা আবদুল বাসিত, সাবেক ছাত্রনেতা আবু নাসের শেখ, মোস্তাফিজুর রহমান, শেখ নাসির উদ্দিন, শামীম খান, ইমতিয়াজ এনাম তানিম, রাসেল শাহরিয়ার, মাসুদুর রহমান, এম আবদুর রহিম, মহিলা নেত্রী অঞ্জনা আলম, শামীমা আক্তার, সৈয়দা নাসিমা আক্তার, ব্যারিষ্টার আরেফিন আশরাফ, জুল আফরোজ মজুমদার, তুহিন মোল্লা, শেখ সাদেক, রবিউল আল, নজরুল ইসলাম মাসুক, আনিসুল হক, সলিসিটর গোলাম আজম, সলিসিটর নুরুল গাফফার, ব্যারিস্টার নোমান আল আব্বাস, মাসুদুজ্জামান মাসুদ, হিমু কবির, মাহাবুবুল আল তোহা, ফয়সাল আহমেদ, আরিফুল ইসলাম, আরিফুর রহমান খান, ফজলে রহমান পিনাক, শরীফ রানা, মাসুক ই এলাহী, ফয়েজ আহমদ, শেখ রনি, শাকসুদুর রহমান বাবু, শরীফুল ইসলাম, সৈয়দ কবির হোসেন, রায়হান, মো: মাহবুবুর রহমান, ইকবাল হোসেন, এম ইউসুফ আলী, মোহাম্মদ মনির হোসেন, তরিকুল ইসলাম, মো: জামিল ভূইয়া, শায়খ মাহদী, মো: বেলাল হোসেন প্রমুখ। ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টস মুভমেন্ট ফর বাংলাদেশ আয়োজিত মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ পরিচালনা করেন ছাত্রনেতা সাইফুল ইসলাম মিরাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here